করোনা আক্রান্ত মুকুল রায়ের সহধর্মিণী কে দেখতে হাসপাতালে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

মনোরঞ্জন যশ, দুর্গাপুর :

তৃণমূল কংগ্রেসের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড ছিলেন তিনি। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একসময়কার ছায়াসঙ্গী মুকুল রায় প্রায় তিন বছর আগে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন ভারতীয় জনতা পার্টিতে। বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর নিজের বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে তিনি বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর প্রধান আপত্তির কারণ। এক্ষেত্রে দলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে জায়গা দেওয়ার কারণেই যে তিনি তৃণমূল কংগ্রেস ত্যাগ করেছিলেন, তা বারে বারে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন মুকুল রায়‌।

পরবর্তীতে তার পুত্র সহ তৃণমূলের একাধিক জনপ্রতিনিধিদের বিজেপিতে আনতে সক্ষম হয়েছিলেন বর্তমান বিজেপি বিধায়ক মুকুলবাবু। কিন্তু 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকে সেভাবে বঙ্গ রাজনীতিতে সক্রিয় হতে দেখা যাচ্ছে না‌। তবে সম্প্রতি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। আর তারপর থেকেই কার্যত গৃহবন্দি মুকুল রায়।

এমনকি তার সহধর্মিণীও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। আর এই পরিস্থিতিতে এবার জল্পনা বাড়িয়ে প্রবল প্রতিপক্ষ মুকুল রায়ের সহধর্মীনিকে দেখতে হাসপাতালে পৌঁছে গেলেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি তথা সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। আর হঠাৎ করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুকুল রায়ের সহধর্মিনীকে দেখতে হাসপাতালে পৌঁছে যাওয়ার ঘটনা এখন কার্যত জল্পনা সৃষ্টি করল রাজ্য জুড়ে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আজ পাথরপ্রতিমা থেকে শুরু করে সন্দেশখালি, বিস্তীর্ণ এলাকায় দুর্যোগ পরবর্তী পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তারপরেই কলকাতা ফেরার পথে মুকুল রায়ের সহধর্মিনী কৃষ্ণা রায়কে দেখতে হাসপাতালে পৌঁছে যান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে মুকুল রায়ের পুত্র তথা বিজেপি নেতা শুভ্রাংশু রায়ের সঙ্গে কথা বলেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি। আর এই গোটা বিষয়কে নিয়েই তৈরি হয়েছে জল্পনা।

অনেকে বলছেন, কিছুদিন আগেই বিধানসভা নির্বাচন সমাপ্ত হয়েছে। আর তারপরই সদ্য সরকারে আসা তৃণমূলের বিরোধীতা না করে আত্মসমালোচনা করা উচিত বলে ফেসবুকে ইঙ্গিতবাহী পোস্ট করেন শুভ্রাংশু রায়। যারপরে তার দলবদল নিয়ে জল্পনা ক্রমশ বাড়তে শুরু করে। আর এবার সেই জল্পনাকে আরও বাড়িয়ে দিয়ে সেই মুকুল রায়ের সহধর্মিনীর স্বাস্থ্য সম্পর্কে খোঁজ নিতে হাসপাতালে উপস্থিত হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো।

পর্যবেক্ষকদের মতে, নিঃসন্দেহে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই উদ্যোগ মানবতার খাতিরে, তা বলাই যায়। বিরোধী দলের নেতা নেত্রী হলেও করোনা আক্রান্ত মুকুল রায়ের সহধর্মিনীকে দেখতে গিয়ে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় মানবতার পরিচয় দিয়েছেন, এমনই দাবি করবেন সকলে। কিন্তু যখন মুকুল রায় এবং শুভ্রাংশু রায়কে নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়েছে, তখনই কৃষ্ণা রায়কে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দেখতে যাওয়া এবং শুভ্রাংশু রায়ের সঙ্গে কথা বলা জল্পনাকে ক্রমশ বাড়িয়ে দিচ্ছে। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।