করোনার উৎস সম্পর্কিত তথ্য দিতে চিনকে বাধ্য করতে পারি না, জানাল WHO

মনোরঞ্জন যশ, দুর্গাপুর :

করোনার প্রাদুর্ভাব কোথা থেকে শুরু হয়েছিল, তা অবশ্য এখন আর কারো অজানা নয়। চীনের ইউহান প্রদেশ থেকে শুরু হয়ে করোনা ভাইরাস কালক্রমে ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বে। বিশ্বের বহু দেশই চীনকে করোনার প্রাদুর্ভাবের জন্য অভিযুক্ত বলে দায়ী করেছে। তবে হু জানিয়ে দিল, করোনা সংক্রান্ত কোনো খবর পাওয়ার জন্য চীনকে জোর করা যাবেনা। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মহলে চীনকে করোনার তথ্য লুকানোর জন্য দায়ী করা হয়েছে। বিশ্বজুড়ে লাগাতার করোনার দাপট সামলাতে বিভিন্ন দেশ বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গত দেড় বছরে করোনা গোটা বিশ্বের পরিস্থিতি বদল করে দিয়েছে।

শুরু থেকেই করোনার উৎস সন্ধান নিয়ে আমেরিকা এবং চীনের তরজা ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনা ভাইরাসকে ‘চীনা ভাইরাস’ বলেও অভিহিত করেছিলেন যা আন্তর্জাতিক মহলে তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি করেছিল। অন্যদিকে হু এর পক্ষ থেকেও এবার জানিয়ে দেওয়া হল, চীনকে করোনার উৎস সম্পর্কে তথ্য প্রকাশ করবার জন্য তাঁদের পক্ষ থেকে আর কোন জোর দেওয়া যাবেনা। এ প্রসঙ্গে হু এর ডিরেক্টর মাইক রায়ান জানিয়ে দিয়েছেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সেই ক্ষমতা নেই, যা কোন দেশকে জোর করতে পারে কিছু জানার জন্য। তবে সেক্ষেত্রে সদস্য দেশের পূর্ণ সহযোগিতা এবং সমর্থন প্রয়োজন। করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি নিয়ে বিতর্ক এখনো অব্যাহত।

কেউ বলেন বাদুড় থেকে মানব শরীরের ছড়িয়েছে এই জীবাণু। কেউ বলেন চীনের গবেষণাগারে কৃত্রিমভাবে এই জীবাণু তৈরি হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে। এ ব্যাপারে খোঁজ চালাতে চীনে হু এর এক প্রতিনিধিদল পৌঁছান। কিন্তু তাঁরা অভিযোগ জানিয়েছেন, তদন্তে নেমে তাঁরা সম্পূর্ণ তথ্য পাননি করোনা সংক্রান্ত। মূলত মনে করা হচ্ছে, বেজিং তাঁদের সব ক্ষেত্রে সাহায্য করেনি। তার ওপর হু ডিরেক্টর যেভাবে জানিয়ে দিলেন চীন যদি তাঁদেরকে আর তথ্য না দেয়, তাহলে তাঁদের পক্ষে আর কিছু করা সম্ভব নয়। আর খুব স্বাভাবিকভাবেই হু এর এই কথা নতুন করে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে।

পাশাপাশি সম্প্রতি মার্কিন বিদেশসচিব অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন জানিয়েছেন, বিশ্বজুড়ে যেভাবে করোনা ভাইরাস আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে এবং এই ভাইরাসের উৎস স্থান হিসেবে জানা যায় চীনের ইউহান প্রদেশকে তাই এই দায় চীনকেই নিতে হবে। পাশাপাশি আমেরিকা যে এর জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে, সে ব্যাপারেও ইঙ্গিত দেন তিনি। তবে চীনের পক্ষ থেকে এখনও পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি। বিজ্ঞানীদের দাবি, করোনা ভাইরাস থেকে ইতিমধ্যেই মুক্তি পাওয়ার কোন কারণ নেই। আগামী দিনেও করোনাকে সাথে নিয়েই চলতে হবে।

error: Alert: Content is protected !!